News from Archive: হকার সেজে টিকা নিচ্ছেন তৃণমূলের কর্মী-সর্থকেরা, অভিযোগ বাম ও বিজেপির

গণেশ চন্দ্র (শিলিগুড়ি): রাজ্যে টিকাকরনের বিস্তর অভিযোগ নিয়ে আর একবার শিরনামে শিলিগুড়ি। এবার হকার সেজে টিকা নেওয়ার অভিযোগ উঠলো তৃণমূলের কর্মী সমর্থকদের বিরুদ্ধে। এর আগে সরকারি টিকা নিতে গেলে মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে অনুদান বাধ্যতামূলক করার অভিযোগ উঠেছিল। এবার বাম ও বিজেপির অভিযোগ, সুপার স্প্রেডারদের জরুরি ভিত্তিতে টিকা দিতে হকারদের যে প্রতিষেধক দেওয়া হচ্ছে, সেখানেও উঠল নাম জমা নেওয়ার ক্ষেত্রে হকার নয়, এমন তৃণমূল কর্মী-সমর্থকরাও ঢুকে পড়ছেন।

হকাররা রাত জেগে টিকার জন্য লাইন দিলেও কুপন তুলে নিয়ে তা তৃণমূল কর্মীদেরই বিলি করা হচ্ছে বলে এদিন অভিযোগ তুলেছেন রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী তথা সিপিএম নেতা অশোক ভট্টাচার্য। শিলিগুড়ির প্রাক্তন মেয়রের দাবি, সিপিএম-ত্যাগী এক তৃণমূল নেতার এহেন কর্মকাণ্ডেই সাধারণ মানুষ টিকা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। এমনকি স্বাস্থ্যকর্মীরা এ নিয়ে প্রতিবাদ করলে তাদের বদলির করে দেওয়ার হুমকি দেওয়া হচ্ছে। তাই একপ্রকার বাধ্য হয়েই স্বাস্থ্যকর্মীরা বাধ্য হচ্ছেন এসবে মদত দিতে। তিনি এ নিয়ে জেলাশাসককে সব জানিয়েছি।

একই অভিযোগ বিজেপিরও। বিধায়ক শংকর ঘোষের দাবি, প্রথম দিন থেকেই টিকার ক্ষেত্রে হকারের নামে ভুয়ো তালিকা তৈরী করিয়ে শাসক দলের কর্মীদের টিকাকরণ করিয়ে নেওয়া হচ্ছে। প্রশাসনকে বলেও লাভ হয়নি। টিকা নিয়ে রাজনীতি ও ব্যবসা দুইই চলছে।

যদিও দুই পক্ষেরই অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল। তৃণমূলের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, “এসবই মিথ্যা অভিযোগ। ভিত্তিই নেই। পৌরনিগম বাজার কমিটি থেকে সরাসরি তালিকা নিচ্ছে। আমরা তালিকা দিচ্ছি এটা ঠিক। কিন্তু এর মধ্যে রাজনীতি নেই। বাজার কমিটিগুলি যে নাম দিচ্ছে সেগুলিই আমরা পাঠাচ্ছি। টিকা পাচ্ছেন হকাররা। আর কুপন বিলি স্থলে পুলিশ থাকে। আমরা কুপন বিলি করি না।”