দেবেন্দ্র সিং যা করেছেন সেটা কি প্রশাসনিক ক্ষমতার অবক্ষয়?

দেবেন্দ্র সিং যা করেছেন সেটা কি প্রশাসনিক ক্ষমতার অবক্ষয়? নাম বা পোশাক দেখে অপরাধী/জঙ্গী চেনার প্রক্রিয়া বাতাসে ভেসে বেড়াচ্ছে আজ, আর তার সমর্থনে যারা যুক্তি দিয়ে অতি উৎসাহে বুঝিয়ে দিতে নিজেকে সক্ষম মনে করে গলার জোর ক্রমশঃ বাড়িয়ে তুলছে, ঠিক এই মুহূর্তে একটি নাম তাদেরকে কি অন্যভাবে ভাবিয়ে তুলছে? নামটি হল জম্মুও কাশ্মীরের এক ডিএসপি দেবেন্দ্র সিং। এই ডিএসপি যেমন তেমন নয়, ইনি একজন রাষ্ট্রপতি পুরস্কারপ্রাপ্ত অসমসাহসী পুলিশ অফিসার। অসমসাহসী বটে। যে কিনা একই গাড়িতে হিজবুল জঙ্গির সফরসঙ্গী। কয়েকদিন আগে গ্রেফতার হয়েছেন। যাঁর নাম ২০০১ সালে সংসদ হামলার সংগে জড়িত।

এমনকী পুলওয়ামায় মিলিটারি কনভয়ে জঙ্গী হানার ঘটনায় তাঁর নাম জড়িয়ে থাকাটাও গোয়েন্দাদের সন্দেহের বাইরে নয়। তাহলে  নাম দেখে বা পোশাক দেখে অপরাধী কি চেনা যায়? আর একটি কথা না ভাবিয়ে পারে কি? এই ডিএসপির  অপরাধের পিছনে কি কেউ আছে? যদি ধরে নেওয়া যায় যে কেউ নেই, তাহলে ডিএসপির এই সাহস এক প্রশাসনিক ক্ষমতার অবক্ষয়। যার প্রতিফলনে তৈরি হয় সমাজে অন্ধকার। তবে বিচক্ষণ মানুষ মাত্রই অনুভব করতে পারেন যে আজকের সমাজের কিছু  ক্ষমতার আড়ালে থাকে এক অন্ধকার যা আমরা এড়িয়ে গেলেও আমাদের চোখ এড়ায়নি। কিন্তু আর এক ক্ষমতার ছায়ায় ঢাকা থাকে এই অন্ধকার। যে ছায়া তৈরি হয় এক নোংরা  রাজনৈতিক ক্ষমতার খেলায়। যে খেলা কোনও নামে বা পোশাকে চেনা যায় কি? দেবেন্দ্র সিং যা করেছেন সেটা কি প্রশাসনিক ক্ষমতার অবক্ষয়?

ক্লিক করে পড়ুন ‘সাতসকাল’ ই-খবরের কাগজ

The post satsakal 08-05-2021 appeared first on satsakal.com.