করোনা পরিস্থিতিতে একঘেয়েমি! ফ্যাশন হোক শাড়িতে

করোনা অতিমারিতে বাড়িতে বসেই কেটে যাচ্ছে বেশিরভাগ সময়ে। অফিসের কাজ কিংবা পড়াশোনা থাকলেও সেও তো এখন বাড়িতেই। তাই নতুনত্ব কিছুই করা হচ্ছে না। একঘেয়েও লাগে। তাই মন ভালো রাখাতে বন্ধু করে নিতেই পারেন ফ্যাশনকে।

কথায় বলে, শাড়িতেই নারি। আর বাঙালি হলে, শাড়ি ছাড়া কি আর ফ্যাশন সম্পূর্ণ হয়? ফর্ম্যাল ইন্ডিয়ান স্টাইলে আপনি শাড়ি পরলে তা যদি আপনার একঘেয়ে লাগে, আপনি অন্যভাবেও তো শাড়ি ড্রেপিং করতে পারেন। স্টাইলিং করবেন আপনি। তাহলে শাড়ি ড্রেপিং নিয়ে দেখে নিন টিপসগুলো

ধোতি স্টাইল: এই শাড়ি ড্রেপিং একটু অন্যরকম হবে ঠিকই, কিন্তু ভীষণ অ্যাট্রাকটিভও হবে। শাড়ি ড্রেপিংয়ের এই কায়দা কিন্তু আস্তে আস্তে ট্রেন্ড হয়ে উঠছে। সাধারণভাবে যেভাবে আপনি কুঁচি করেন, সেভাবে করবেন না। বরং, শাড়ির তলার অংশটি ধুতির মতো করে পরুন। আঁচলটি অবশ্যই প্লিট করে নেবেন। আঁচল একটু বড় রাখুন, আপনাকে বেশ ভাল লাগবে। শুধুই বাড়িতে ছবি তোলার জন্য যে আপনি এভাবে শাড়ি ড্রেপ করবেন তা নয়। পরবর্তীকালে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পর কোনও অনুষ্ঠানেও এরকমভাবে শাড়ি পরতে পারেন। সবার থেকে আলাদা লাগবে আপনাকে।

স্কার্ফ স্টাইল: এইভাবে শাড়ি পরে দেখেছেন কি? যখন আপনি শাড়ি পরছেন, তখন শাড়ির আঁচলটা তুলনামূলক বড় রাখুন। সেটাই জড়িয়ে নিন গলায় স্কার্ফের মতো। আপনি একরঙা সুতির শাড়িতেও এই স্টাইল করতে পারেন। আবার অন্যান্য শাড়িতেও করতে পারেন একই স্টাইল। তবে এক্ষেত্রে বড় ঝুলের ব্লাউজ পরুন। বেশি ভাল লাগবে। খোঁপা করতে পারেন। চুল খুলেও রাখতে পারেন। আপনাকে কিন্তু বেশ অন্যরকম লাগবে। সঙ্গে ম্যাচিং করে পরুন কানের দুল। শাড়ি ড্রেপিং-এর এই কায়দাটি কিন্তু বেশ আলাদা।

হল্টার শাড়ি ড্রেস ড্রেপ: বেশ মজাদার এই শাড়ি ড্রেপিং। শাড়ি পরলেও তা কিন্তু একদমই এথনিক স্টাইলিং হবে না। বরং ওয়েস্টার্ন কায়দায় শাড়ি পরে আপনাকে অপরূপা দেখাবে। আপনি যে কোনও অনুষ্ঠানে এভাবে শাড়ি পরে যেতে পারেন। সিল্কের শাড়ি বেছে নিলে বেশি ভালো হয়। একরঙা হলে আরও ভালো।