ফিল্মি স্টাইলে ফের দুঃসাহসিক ডাকাতি তুফানগঞ্জে

মনিরুল হক (কোচবিহার): ফিল্মি কায়দায় এক রেশন ডিলারের বাড়িতে দুঃসাহসিক ডাকাতির ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ালো এলাকায়। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল গভীর রাতে কোচবিহার জেলার বক্সিরহাট থানার শালবাড়ি বাজার এলাকায় নিরেন কুমার নামে এক রেশন ডিলারের বাড়িতে। ওই ঘটনায় পর এলাকার লোকজনদের সাথে ডাকাত এর সঙ্গে ধস্তাধস্তি করে, তখনি ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আহত হয় এক পুলিশ আধিকারিক। ওই ঘটনার পর উত্তেজিত জনতা দুই ডাকাতকে ধরে ফেলে এবং ব্যাপক মারধোর করে পরে পুলিশের হাতে তুলে দেন। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, ডাকাতের উদ্দেশ্যে ভাঙচুর করা হয় ঘরে থাকা একাধিক, আলমারি, গোদরেজ, খাট সহ্ একাধিক আসবাবপত্র। যদিও এই ঘটনায় রাতেই ভাঙচুর ও বাড়ির লোকের চিৎকার চেঁচামেচি শুনে ছুটে আসে বেশ কিছু স্থানীয় যুবক। ডাকাতি শেষে গাড়ি করে পালানোর সময় স্থানীয় যুবকদের তৎপরতায়, অ্যাসিড, অস্ত্রশস্ত্র, ও তাজা বোম সহ্, আটক করা হয় ২ ডাকাতকে। যদিও দুঃসাহসিক ডাকাতির ঘটনায ইতিমধ্যেই তদন্ত শুরু করেছে তুফানগঞ্জ মহাকুমা অতিরিক্ত পুলিশ আধিকারিক জ্যাম ইয়াং জিম্বার নেতৃত্বে। এছাড়াও প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে নিয়ে করা হচ্ছে ডাকাতির ঘটনার পুনঃনির্মাণও।

এদিন এবিষয়ে রেশন ডিলার নীরেন কুমার বলেন, গতকাল গভীর রাতে তার বাড়িতে গাড়ি করে ডাকাতি করতে আসে একদল দুষ্কৃতী। বোম, অ্যাসিড ও অস্ত্রশস্ত্র ভয় দেখিয়ে লুটপাট করা হয় কয়েক ভরী সোনার গহনা সহ কয়েক লক্ষ টাকা। ডাকাতি করতে এসে মারধর করা হয় তার স্ত্রী ও পুত্র কে। গোটা ঘটনায় বাক্শিরহাট থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করবেন বলেও জানান ওই বাড়ির মালিক।

যদিও স্থানীয় বাসিন্দাদের তৎপরতায় দুজন ডাকাত কে আটক করা হলেও, পালিয়ে যেতে সক্ষম হয় বাকি ডাকাতরা। ডাকাতির অভিযোগে আটক করা দুই ডাকাতের মধ্যে একজনের বাড়ি কোচবিহারে ও অপরজনের বাড়ি দিনহাটা এলাকায় বলে প্রাথমিকভাবে জানা যায়। তাদের বাকি দুষ্কৃতীদের খোঁজে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।