পুলিশের এনকাউন্টারে মৃত্যু হায়দরাবাদের চার ধর্ষকের, ঘটনার সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে বিভিন্ন মহলে

চার অভিযুক্ত ধর্ষককে গুলি করে হত্যা করল হায়দরাবাদ পুলিশ

পুলিশের এনকাউন্টারে মৃত্যু হায়দরাবাদের চার ধর্ষকের, ঘটনার সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে বিভিন্ন মহলে। পুলিশের এনকাউন্টারে মৃত্যু হল হায়দরাবাদে গণধর্ষণ ও খুনের অপরাধে ধৃত চার অভিযুক্তর। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার ভোর সাড়ে তিনটের সময়। এরপর সকাল হতেই এই খবর সংবাদমাধ্যম এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে গোটা দেশে আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে। নিঃসন্দেহে এটি একটি নজিরবিহীন ঘটনা। এই ঘটনা সামনে আসার পর থেকে বিভিন্ন মহল থেকে হায়দরাবাদের পুলিশ কমিশনার ভি সি সাজ্জানের প্রতি অভিনন্দনবার্তা আসতে শুরু করে। কারণ ভি সি সাজ্জানের এনকাউন্টারেই মৃত্যু হয়েছে চার ধর্ষকের।

বেশ কয়েকদিন ধরেই হায়দরাবাদে পশু চিকিতসক প্রিংয়াকা রেড্ডিকে গণধর্ষণ এবং নৃশংসভাবে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনা নিয়ে উত্তাল হয়েছে গোটা দেশ। সোশ্যাল মিডিয়াতেও প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। অভিযুক্তদের উপযুক্ত শাস্তির দাবিও উঠেছে। এই বিষয়ে বিভিন্নজন বিভিন্ন মত পোষণ করেছেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় কেউ জানিয়েছেন ধর্ষকদের গুলি করে মেরে ফেলা উচিত। কেউ বলেছেন ধর্ষকদের তিলে তিলে মারা উচিত। এছাড়াও অনেকে অনেক রকম কথাই বলেছেন।

অবশেষে শুক্রবার পুলিশের এনকাউন্টারে যখন এই চার অভিযুক্ত ধর্ষকের মৃত্যু হল তখন মৃতা চিকিতসকের পরিবার এবং গোটা দেশবাসী যেন একটু হলেও স্বস্তি পেল। সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেরই প্রতিক্রিয়ায় দেখা গেছে, হায়দরবাদের পুলিশকে যেমন তাঁরা অভিনন্দন জানিয়েছেন তেমন বলেছেন, আজকের সকালটা একটা ভালো খবর শুনে শুরু হল। মৃতা চিকিতসকের বাবাও পুলিশকে কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেছেন, এবার হয়তো আমার মেয়ের আত্মা শান্তি পেল।

আরও পড়ুন: ভারত হিন্দুরাষ্ট্র! মন্তব্য বিজেপি সাংসদের

অন্যদিকে তেলেঙ্কানার আইনমন্ত্রী এ ইন্দ্রকরণ রেড্ডি জানিয়েছেন, ভগবান অভিযুক্তদের শাস্তি দিয়েছে।

চার ধষর্কের এনকাউন্টারে হত্যার ঘটনায় পুলিশের বিবৃতি, ঘটনার পুনর্নির্মাণের জন্য চার অভিযুক্তকে নিয়ে যাওয়া হয় সাদনগরে ৪৪ নন্বর জাতীয় স়ড়কের আন্ডারপাসের কাছে। শামশাবাদে টোলপ্লাজার কাছে ধর্ষণ করে খুনের পর প্রায় ৪০ কিলোমিটার দূরে সাদনগরের পুড়িয়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। পরের দিন চিকিত্সকের দগ্ধ দেহ সেখান থেকেই গিয়েছিল। ঘটনার দিন ঠিক কী ঘটেছিল তার পুঙ্খানুপুঙ্খ তথ্য জোগাড় করতেই শুক্রবার ভোররাতে অভিযুক্তদের সেখানে নিয়ে যাওয়া হয়। সাদনগর নিয়ে যাওয়ার সময় সুযোগ বুঝে পালানোর চেষ্টা করে ওই চার জন। বাধ্য হয়ে গুলি চালায় পুলিশ। তাতেই মৃত্যু হয় ওই চার অভিযুক্তের। সাইবারাবাদ পুলিশ কমিশনার ভি সি সজ্জনার সংবাদসংস্থাকে জানিয়েছেন, অভিযুক্ত আরিফ, নবীন, শিবা ও চেন্নাকেশাভুলু পুলিশের গুলিতে মারা গিয়েছে। ঘটনাস্থলে নিয়ে যাওয়ার পথে সাদনগরের চাতানপল্লিতে পুলিশের হেফাজত থেকে পালানোর চেষ্টা করে অভিযুক্তরা। আর সেই কারণেই গুলি করে হত্যা করা হয়েছে চার অভিযুক্তকে। এই ঘটনায় হায়দরাবাদ পুলিশক্ যেমন অনেকে বাহবা দিয়েছেন, তেমন একাংশ আবার নানা রকম বিতর্কিত প্রশ্নও তুলেছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকে এই ঘটনার সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন, অনেকের আবার প্রশ্ন পুলিশের হাত থেকে কীভাবে অপরাধীরা পালানোর চেষ্টা করতে পারে? অনেকে আবার প্রশ্ন তুলেছেন চারজন কি একই দিক থেকে পালানোর চেষ্টা করেছিল? সামাজিক মাধ্যমে বিভিন্ন প্রশ্ন উঠছে। পাশাপাশি প্রশ্ন উঠছে নির্ভয়ার অভিযুক্তদের এখনও কেন শাস্তির ব্যবস্থা করা হচ্ছে না। উন্না কাণ্ডের অভিযুক্তদের এখনও কেন গ্রেফতার করা হচ্ছে না?

তবে ঘটনার সত্যতা নিয়ে যে প্রশ্নই উঠুক না কেন সকলেই চায় আসল সত্যিটা সামনে আসুক। পুলিশের এনকাউন্টারে মৃত্যু হায়দরাবাদের চার ধর্ষকের, ঘটনার সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে বিভিন্ন মহলে

ক্লিক করে পড়ুন ‘সাতসকাল’ ই-খবরের কাগজ

The post satsakal 12-05-2021 appeared first on satsakal.com.