খড়্গপুরে করোনা বিধি উপেক্ষা করেই পুরোদমে চলছে রেল ওয়ার্কশপের কাজ

তারক হরি (পশ্চিম মেদিনীপুর): করোনা রুখতে রাজ্য সরকারের কড়া বিধিনিষেধ এখনও জারি আছে। কোভিড বিধি মেনে সীমিত সংখ্যক কর্মী নিয়ে স্যানিটাইজেশন সহ জরুরি কিছু পরিষেবার উপর ছাড় দেওয়া হয়েছে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর খোদ স্বয়ং যেখানে জাতির উদ্দেশ্যে বার্তা দিয়ে ‘কোভিড প্রটোকল মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছেন। কিন্তু বাস্তবে খড়্গপুরে দেখা গেল অন্য চিত্র, যেখানে কেন্দ্রীয় সরকারের রেল কর্তৃপক্ষই এই আইন লংঘন করে প্রায় ১০০ শতাংশ কর্মী নিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। ঘটনাটি দক্ষিণ পূর্ব রেলওয়ের খড়্গপুর ওয়ার্কশপের ঘটনা।

রেল ওয়ার্কশপের এই ধরনের বিধিভঙ্গের কারণে ইতিমধ্যেই খড়্গপুরের মহাকুমাশাসকের কাছে অভিযোগ জানিয়েছে শাসক দলের শ্রমিক সংগঠন আইএনটিটিইউসি।

এই অভিযোগের সত্যতা যাচাই করে মহকুমাশাসক আজমল হোসেন জানান, “এভাবে করোনা বিধি উপেক্ষা করে কর্মীদের কাজে লাগিয়ে গোটা খড়্গপুর শহরকে বিপদে ফেলা হচ্ছে। বিপর্যয় মোকাবিলা আইন লংঘন করা হয়েছে। আমরা রেলওয়ের চিফ ওয়ার্কশপ ম্যানেজারকে এর কারণ দর্শানোর জন্য শো-কজ নোটিশ পাঠিয়েছি। ”

করোনা বিধি উপেক্ষা করে কাজ করানোর বিষয়ে রেলের ওয়ার্কশপে এইরূপ কোনও বিধি-নিষেধ মানা হচ্ছে না বলে রেল কর্মীরাও অভিযোগ জানিয়েছেন। কার্যত নজিরবিহীনভাবে আইএনটিটিইউসি’র অভিযোগকেই সমর্থন জানিয়েছে তাঁরা। আর এস এস প্রভাবিত রেলের শ্রমিক সংগঠন ডিপিআরএমএস। সংগঠনের নেতা প্রহ্লাদ সিংহ। তিনি জানিয়েছেন, “রেল ওয়ার্কশপ যদি এই ধরনের কাজ করে থাকে তা অন্যায়। কেন্দ্র ও রাজ্যের কোভিড বিধি মেনে চলা উচিত। ”

অন্যদিকে, আইএনটিটিইউসি’র খড়্গপুর শহরের সভাপতি তপন সেনগুপ্ত জানিয়েছেন, “গোটা মে মাসই রেলের ওয়ার্কশপ বন্ধ ছিল, হঠাৎ করে ১ লা জুন থেকে পুরোদমে ওয়ার্কশপ চালু করে দেওয়া হল। অথচ, রাজ্য সরকার যেখানে কোভিড বিধিনিষেধ আরোপ করে ১৫ ই জুন পর্যন্ত লকডাউনের কার্যকারিতা বাড়ানো হয়েছে। সেখানে কি করে এই অসাবধানতা ও লকডাউন উপেক্ষা করে তাঁরা কর্মী নিয়ে কাজ শুরু করল। মহকুমাশাসকের কাছে গোটা বিষয়টি অভিযোগ আকারে জানানো হয়েছে।”

উল্লেখ্য, এদিকে গত ৩ দিনে খড়্গপুর শহরে যেখানে করোনা আক্রান্ত প্রায় ১৬২ জন। সেখানে রেলের স্থায়ী – অস্থায়ী কর্মী মিলে করোনা আক্রান্ত প্রায় ৩০ জন বলে সূত্রে খবর। সেখানে ১০০ শতাংশ কর্মী নিয়ে কি ভাবেই বা রেল কাজ শুরু করল তা নিয়ে ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে জোর জল্পনা।

যদিও সমস্ত অভিযোগ উড়িয়ে রেলের চিফ ওয়ার্কশপ ম্যানেজার বিজয় কুমার রথ জানান, “আমরা কোভিড বিধি ও রেল বোর্ডের সম্পূর্ণ গাইডলাইন মেনেই ন্যূনতম কর্মী নিয়ে কারখানা চালাচ্ছি। জরুরী পরিষেবা দেওয়ার জন্যই আমাদের কাজ চালিয়ে যেতে হচ্ছে। যাঁরা এসব বলছেন বলছেন তাঁরা সম্পূর্ন ভুল খবর রটাচ্ছেন। আমরা বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি।”

ক্লিক করে পড়ুন ‘সাতসকাল’ ই-খবরের কাগজ

The post satsakal 15-06-2021 appeared first on satsakal.com.