গৃহবধূ হত্যা, পলাতক স্বামী সহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন

এস,কে, বিশ্বাস, নদিয়া :
শারীরিক নির্যাতন সহ  শ্বশুর বাড়ির অমানবিক অত্যচারের শিকার হলেন এম,এ,পাশ এক গৃহবধূ। বালিশ চাপা দিয়ে মেরে ফেলে ঘরের মধ্যে দেহ ঝুলিয়ে আত্মহত্যার গল্প ফেঁদে ও শেষ পর্যন্ত চক্রান্ত ফাঁস হয়ে যাওয়ায় পলাতক স্বামী সহ শ্বশুর বাড়ির লোকজন। ঘটনাটি ঘটেছে নদিয়ার নাকাশিপাড়া থানা এলাকার ধর্মদা বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকায়।
বিবরনে প্রকাশ, ধর্মদা বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকার বাসিন্দা বাপন সেখের সঙ্গে কয়েক বছর আগে বিয়ে হয় এলাকারই বাসিন্দা রিংকু গনির। বিয়ের পর থেকেই রিংকু গনি পড়াশোনা চালিয়ে যেতে চাইতেই সংসারে শুরু হয় অশান্তি। একটি সন্তান থাকা সত্ত্বেও প্রায় ই রিংকুর উপর শারীরিক নির্যাতন সহ মারধর করতো ওর স্বামী বাপন সেখ।
অভিযোগ,শনিবার রাতে পুনরায় রিংকুকে মারধর করে তার স্বামী এবং কাকাতো ভাই জনৈক বাবুসোনা এবং ফোনে শ্বাশুড়ি অর্থাৎ রিংকুর মা জাহানারা বিবিকে শাসাতে থাকে,মেয়ে কে মেরে লাশ সকালে শ্বশুর বাড়িতে পাঠিয়ে দেবে বলে। শ্বশুর বাড়ির লোকজন জামাই বাপন কে শান্ত থাকার অনুরোধ সহ রবিবার সকালেই তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছাবে বলে অনুরোধ করা সত্ত্বেও বাপন তার স্ত্রীকে বালিশ চাপা নিয়ে হত্যা করে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ঘরের সিলিং এ ঝুলিয়ে রেখে আত্মহত্যার নাটক সাজায় বলে অভিযোগ কিন্তু শেষ পর্যন্ত পরিস্থিতি বেগতিক দেখে গা ঢাকা দিয়েছে জামাই বাপন সেখ, কাকাতো ভাই বাবু সোনা সহ রিংকুর শ্বশুর বাড়ির লোকজন। রিংকুর বাপের বাড়ির পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। এই ঘটনায় বাপন সেখ সহ বাপনের পরিবারের লোকজন গা ঢাকা দিয়েছে।
মঙ্গলবার রিংকুর গনির মা জাহানারা বিবিকে এ প্রসঙ্গে জনাতে চাওয়া হলে তিনি এই ঘটনায় অভিযুক্ত জামাই বাপন সেখ সহ জামাইয়ের কাকাতো ভাই বাবু সোনার ফাঁসির দাবি করেন।

টাচ করুন, দেখুন আপনার প্রিয় অভিনেত্রীদের অসংখ্য ফটো