তৃণমূলের পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতিকে খুনের চেষ্টা, নিরাপত্তারক্ষী আক্রান্ত

শ‍্যাম বিশ্বাস (উত্তর ২৪ পরগনা): বসিরহাট মহাকুমার স্বরূপনগর থানার তেপুল মির্জাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের পারুই গ্রামের ঘটনা।

স্বরূপনগর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি সঙ্গীতা কর, গতকাল বুধবার রাত ১১ টা নাগাদ বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীদের সশস্ত্র হামলা হয় সভাপতির গাড়ি ঘীরে, ভাঙচুর মারধরের মতো ঘটনা ঘটে। একই গ্রামে তৃণমূলের কর্মী সমর্থকদের বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে বলে জানা যায়। আক্রান্ত পরিবারের সঙ্গে কথা বলে বাড়ি ফিরছিল দ্বীপ মেদিয়া গ্রামে তার গাড়ি ঘিরে ভাঙচুর চালায় বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা, ধারালো অস্ত্র বাস লাঠি নিয়ে যে যার মত মারধর, গাড়ি ভাঙচুর করতে শুরু করে।

পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতির নিরাপত্তাকর্মী অতনু সরদার কেও বেধড়ক মারধর করে এবং ধারালো অস্ত্র দিয়ে হাতে ও বুকে কোপমারে। নিরাপত্তাকর্মী আত্মরক্ষা করতে শূন্যে ১, রাউন্ড গুলি চালায়।

এই ঘটনার জেরে এলাকায় আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি হয়েছে, সরুপনগর বিধানসভার তৃণমূল কংগ্রেসের বিপুল ভোটে জয়লাভ করার পর পরিকল্পিতভাবে এই আক্রমণ।

স্বরূপনগরের পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি সঙ্গীতা কর সক্রিয় ভাবে দক্ষতার সঙ্গে সংগঠন করে, তৃণমূলকে জেতার ব্যাপারে যথেষ্ট ভোট করেছিলেন। সেই আক্রোশে ৪০ থেকে ৫০ জন সশস্ত্র দুষ্কৃতী বাস লাঠি নিয়ে পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতির গাড়ি ঘিরে যথেচ্ছ ভাঙচুর চালায় মহিলা সভাপতিকে খুনের চেষ্টা করে। নিরাপত্তারক্ষীকে বেধড়ক মারধর করে, তিনি নিজের জীবন বাঁচাতে শূন্যে এক রাউন্ড গুলি চালায় নিরাপত্তারক্ষী। এই ঘটনার জেরে জে যার মত ঘরের দরজা বন্ধ করে দেয়। আতঙ্কিত হয়ে পড়ে গ্রামের মানুষ।

এই ঘটনায় বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে স্বরূপনগর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে, ক্ষতিগ্রস্ত গাড়িটি পুলিশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে গিয়েছে।

বিজেপি নেতা গৌরাঙ্গ পাল তিনি এই অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা বলে অস্বীকার করেছে, তিনি বলেন, সারা রাজ্য জুড়ে জেহাদিদের দিয়ে সন্ত্রাস সৃষ্টি করছে, মানুষ বীতশ্রদ্ধ হয়ে পড়েছে পুলিশ কোন কাজ করছে না, বাধ্য হয়ে মানুষ আইন নিজের হাতে তুলে নিচ্ছে তিনি আরও বলেন, এটা ওদের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ব্যাপার, এই ঘটনার সঙ্গে আমাদের কোনও কর্মী জড়িত নয়।

ক্লিক করে পড়ুন ‘সাতসকাল’ ই-খবরের কাগজ

The post satsakal 01-08-2021 appeared first on satsakal.com.