শান্তনু ঠাকুরের বাড়িতে বিজেপি নেতাদের বৈঠক

রেশমি চন্দ্র

বঙ্গ বিজেপিতে অস্বস্তির মাত্রা যেন বেড়েই চলেছে।এবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা বনগাঁর বিজেপি সাংসদ শান্তনু ঠাকুরের বাড়িতে দলের বিক্ষুব্ধ নেতাদের বৈঠক। উল্লেখযোগ্য বিষয় হল সেই নেতারাই বৈঠকে গিয়েছিলেন যাঁদের আপাতত দলের সাংগঠনিক দায়িত্ব থেকে সরিয়েছে বিজেপি। আর এই নিয়েই রাজনৈতিক মহলে শুরু হয়েছে জল্পনা।

রবিবার রাতে সায়ন্তন বসু, জয়প্রকাশ মজুমদার, রীতেশ তিওয়ারিরা বৈঠক সারেন শান্তন ঠাকুরের সঙ্গে। বনগাঁর বিজেপি সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর সঙ্গে সায়ন্তনদের সেই বৈঠক নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে। তবে বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষ অবশ্য বৈঠকটিকে সেভাবে গুরুত্ব দিতে নারাজ। তাঁর কথায়, “কার বাড়িতে কে বৈঠক করবেন তা নিয়ে আমার বলার কিছু নেই। শান্তুন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। তাঁর সঙ্গে যে কেউ দেখা করতে যেতেই পারেন।”

রাজ্য বিজেপিতে দ্বন্দ্ব-অভিমানের পালা চলছেই। দিন কয়েক আগেই বনগাঁর বিজেপি সাংসদ শান্তনু ঠাকুরের সঙ্গে দেখা করেছিলেন দলের চার মতুয়া বিধায়ক। দলের নয়া রাজ্য কমিটিতে মতুয়াদের প্রতিনিধি নেই বলে অভিযোগ তুলে কিছুদিন আগেই উত্তর ২৪ পরগনার পাঁচ বিজেপি বিধায়ক হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ ছেড়ে বেরিয়েও যান। পরে একজন গ্রুপে ফিরলেও বাকিরা ফেরেননি। পরে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শান্তনু ঠাকুরও দলের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ ত্যাগ করেছেন।

এদিকে, রবিবার ঠাকুরনগরে বনগাঁর বিজেপি সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শান্তনু ঠাকুরের বাড়িতে দেখা যায় বিজেপির বিক্ষুব্ধ নেতাদের। যাঁদের মধ্যে ছিলেন সায়ন্তন বসু, জয়প্রকাশ মজুমদার, রীতেশ তিওয়ারি। বেশ কিছুক্ষণ শান্তনুর সঙ্গে তাঁদের বৈঠক হয়। যদিও বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সামনে কিছু বলতে রাজি হননি সায়ন্তন, জয়প্রকাশরা।

তবে রবিবারের এই বৈঠক নিয়ে মুখ খুলেছেন রাজ্য বিজেপির প্রাক্তন সভাপতি তথা দলের সর্বভারতীয় সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষ। দলের বিক্ষুব্ধ এই নেতাদের বৈঠককে সেভাবে গুরুত্ব দিতে নারাজ মেদিনীপুরের বিজেপি সাংসদ। তাঁর কথায়, “কে কার বাড়িতে বৈঠক করবে তা নিয়ে আমার কী বলার আছে। শান্তনু এখন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। তাঁর সঙ্গে যে কেউ দেখা করতেই পারেন। সৌজন্যের রাজনীতি এটা। এতে খারাপ কিছু নেই।” তবে দিলীপ ঘোষ এই বৈঠককে গুরুত্ব দিতে নারাজ হলেও, রাজনৈতিক মহলে প্রশ্ন উঠছে এটা কি নেহাত সৌজন্য সাক্ষাৎ নাকি এর পিছনে অন্য কোনো বিষয় আছে?


টাচ করুন, দেখুন আপনার প্রিয় অভিনেত্রীদের অসংখ্য ফটো