পণের বলি মেয়ে, মায়ের অভিযোগে জামাই গ্রেফতার

শ্যাম বিশ্বাস (উত্তর ২৪ পরগনা): পণের বলি বধূ মায়ের অভিযোগের ভিত্তিতে, স্বামী গ্রেফতার। শুধুই কি পণের দাবি, নাকি অবৈধ সম্পর্কের জের, না অন্য কোনো কারণ রয়েছে। পুরো বিষয়টি নিয়ে তদন্তে নেমেছে হাড়োয়া থানার পুলিশ।

বছর ৩৪এর, শ্রাবন্তী মন্ডল দাসের সঙ্গে ১৪ বছর আগে পেশায় হোটেল কর্মচারী মানস দাস‌এর সঙ্গে ভালোবাসা করে একে অপরকে বিবাহ করে, তাদের দুটি সন্তান আছে যাদের বয়স ১২ বছরের কৃশানু দাস পুত্রসন্তান ৬, বছরের সৃজনী দাস কন্যা বিয়ের সময় নগদ ৪০, ০০০ টাকা দেড় ভরি ওজনের সোনার গহনা সহ আসবাবপত্র দিয়ে তাদেরকে বিয়ে হয়।

ঘটনাটি ঘটেছে বসিরহাট মহাকুমার হাড়োয়া থানার আটপুকুর গ্রাম পঞ্চায়েতের মাঝের পাড়া গ্রামের ঘটনা।

তারপর থেকেই চলত অকথ্য অত্যাচার প্রায়শই বলতো বাপের বাড়ি থেকে টাকা নিয়ে আসতে, বধূর বাবা মাধব মন্ডল পেশায় চাষী দুস্থ পরিবার। আমি কি করে টাকা নিয়ে আসব তারপরও থামেনি অমানবিক অত্যাচার। রবিবার সন্ধ্যায় বধু কে বলে বাপের বাড়ি থেকে জমি বিক্রি করে এক লাখ টাকা নিয়ে আসো। বধু রাজি না হওয়ায় সারা রাত্রি চলে তার ওপরে শারীরিক মানসিক অত্যাচার ভোর রাতে তাকে বালিশ চাপা দিয়ে মেরে ঝুলিয়ে দেয়া হয় বলে অভিযোগ বধু বাপের বাড়ি লোকজনের।

গ্রামবাসীরা সকালে এই মর্মান্তিক খবর পেয়ে হাড়োয়া থানায় খবর দেয়, হাড়োয়া থানার পুলিশ এসে বধুকে উদ্ধার করে হাড়োয়া গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে। মৃতদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য বসিরহাট জেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ইতিমধ্যে মৃত বধুর মা অনিমা মন্ডল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে স্বামী মানস দাসের বিরুদ্ধে। অভিযোগের ভিত্তিতে বধুর স্বামীকে আটক করেছে হাড়োয়া থানার পুলিশ।

শুধুই কি পণের দাবিতে এই ঘটনা, নাকি কোন অবৈধ সম্পর্কের জেরে এমন ঘটনা ঘটিয়েছে না অন্য কোনো কারণ রয়েছে সেটাও খতিয়ে দেখছে হাড়োয়া থানার পুলিশ।

ক্লিক করে পড়ুন ‘সাতসকাল’ ই-খবরের কাগজ

The post satsakal 01-08-2021 appeared first on satsakal.com.