বিজেপির আট বিধায়ক যোগ দিলেন সপা-য়, ড্যামেজ কন্ট্রোলে যোগী

শর্মিলা চন্দ্র
 
সমাজবাদী পার্টিতেই গেলেন উত্তরপ্রদেশের বিদ্রোহী প্রাক্তন মন্ত্রী স্বামী প্রসাদ মৌর্য, ধরম সিং সাইনি-সহ আট বিধায়ক। শুক্রবার অখিলেশ যাদবের হাত ধরে তাঁরা সমাজবাদী পার্টিতে যোগ দিলেন। গত মঙ্গলবার মৌর্য যোগী মন্ত্রিসভা থেকে ইস্তফা দেওয়ার পর দেখা করেন সপা সুপ্রিমোর সঙ্গে। তারপর থেকেই জল্পনা গাঢ় হয় তাঁকে। তাঁর দেখাদেখি গত তিনদিনে দুই মন্ত্রী-সহ ৯ বিধায়ক বিজেপি ছেড়েছেন। এদিন বিজেপিকে কটাক্ষ ছুঁড়ে তিনি বলেন, ‘উইকেট পড়ছে’।
এদিন সপাতে যোগ দিয়েই প্রাক্তন মন্ত্রী তথা দলিত সমাজের বড় নেতা স্বামী প্রসাদ মৌর্যর হুঙ্কার, বিজেপি শেষের শুরু লেখা হয়ে গেল। তিনি এদিন বলেন, আজ, ১৪ জানুয়ারি মকর সংক্রান্তির অবসরে বিজেপির শেষের শুরু লেখা হয়ে গেল। তাঁর দাবি, বিজেপি দলিত, গরিব এবং অনগ্রসর সমাজকে বঞ্চিত করেছে ক্ষমতা দখলের পর। তিনি এও বলেছেন, ২০১৭ সালে ক্ষমতায় আসার তাঁকে অথবা কেশব প্রসাদ মৌর্যকে মুখ্যমন্ত্রী করার কথা ভেবেছিল বিজেপি। কিন্তু পরে যোগী আদিত্যনাথকে করে।
এদিন আরও এক প্রাক্তন মন্ত্রী ধরম সিং সাইনি বলেছেন, অনগ্রসর, দলিত সমাজ গত পাঁচ বছর ধরে অবহেলিত। রাজনীতি হোক বা অর্থনীতি, কর্মসংস্থান, সংরক্ষণ সব ক্ষেত্রে তাঁদের বঞ্চিত করা হয়েছে। এই প্রেক্ষিতে আমরা পিছিয়ে পড়া শ্রেণির মানুষ, দলিতরা আজ সমাজবাদী পার্টিতে যোগ দিলাম মকর সংক্রান্তির শুভ অবসরে।
এদিকে, পর পর দলিত-অনগ্রসর সমাজের বড় মুখ বিধায়ক থেকে মন্ত্রীরা বিজেপি ছাড়ায় বিরাট ধাক্কা খেয়েছে গেরুয়া শিবির। মকর সংক্রান্তির দিন তড়িঘড়ি ড্যামেজ কন্ট্রোলে নেমেছেন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। এদিন তিনি তফসিলি সম্প্রদায়ের মানুষের বাড়িতে মধ্যাহ্নভোজন করেন তিনি।  তবে তাঁর এই কৌশল আদৌও ভোটব্যাঙ্কে পড়বে কিনা সেই নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছে।

টাচ করুন, দেখুন আপনার প্রিয় অভিনেত্রীদের অসংখ্য ফটো