উদ্বেগজনক করোনা সংক্রমণ, রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে সতর্কবার্তা দিল স্বাস্থ্যমন্ত্রক

শর্মিলা চন্দ্র
 
যত দিন যাচ্ছে করোনা সংক্রমণের পরিসংখ্যান উদ্বেগজনক পরিস্থিতি আকার ধারণ করছে। এই অবস্থায় কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানাল, আক্রান্তদের মধ্যে এখনও পর্যন্ত হাসপাতালে ভরতি হয়েছে ৫-১০ শতাংশ রোগী। উদ্বিগ্ন মন্ত্রক আরও জানিয়েছে, পরিস্থিতি দ্রুত বদলাচ্ছে, ফলে হাসপাতালে ভরতির সংখ্যা পরে বাড়তে পারে। সমস্ত রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে সবরকম পরিস্থিতর জন্য তৈরি থাকতে বলা হয়েছে।  
সোমবারও করোনা সংক্রমণের পরিসংখ্যান উদ্বেগ বাড়িয়েছে দেশে। এদিন নতুন করে ভারতে আক্রান্ত হয়েছে ১ লাখ ৭৯ হাজার জন। দৈনিক সংক্রমিতের হার ১৩.২৯ শতাংশ। আশ্চর্যের শোনালেও দশদিন আগেও দেশে দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ১০ থেকে ১৫ হাজার।

এদিন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানিয়েছে, “এতখানি সংক্রমণের পেছনে ওমিক্রন রয়েছে বলেই মনে করা হচ্ছে। এই সঙ্গে দেশের একটি বড় অংশে করোনার ডেল্টা স্ট্রেনেও সংক্রমিত হচ্ছে মানুষ।” সরকারি তথ্য বলছে, এখনও পর্যন্ত ৪ হাজার ওমিক্রন আক্রান্তের খোঁজ মিলেছে দেশে। এই আক্রান্তেরা অন্যদের দ্রুত হারে সংক্রমিত করছে বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞরা।

এদিকে বর্তমান পরিস্থিতিতে দেশের সবকটি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে সতর্ক করেছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। অক্সিজেন শয্যা, আইসিইউ বিভাগ,  ভেন্টিলেটারের দিকে বিশেষভাবে নজর দিতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি কোভিড কেয়ার সেন্টারগুলিতে পর্যাপ্ত অক্সিজেন শয্যার ব্যবস্থা করতে বলা হয়েছে। পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যকর্মীর অভাবে জুনিয়র ডাক্তার, নার্স, মেডিকেল পাঠরত পড়ুয়াদেরও কাজে লাগাতে বলা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, সোমবার থেকেই করোনার অতিরিক্ত ডোজ দেওয়া শুরু হয়েছে রাজ্যের স্বাস্থ্যকর্মী ও প্রথমসারির যোদ্ধাদের। প্রাথমিকভাবে প্রায় সাড়ে ৫ লক্ষ প্রথম সারির যোদ্ধা পাবেন টিকার বুস্টার ডোজ। এছাড়া কো-মর্বিডিটি যুক্ত ষাটোর্ধ্ব ব্যক্তিরা প্রথম ধাপেই এই ডোজ পাবেন। কো-উইন অ্যাপে রেজিস্ট্রেশন না করলেও সমস্যা নেই। সহজেই টিকাশিবির থেকে বুস্টার ডোজ পেতে পারবেন তাঁরা, স্বাস্থ্যভবন সূত্রে এমনটাই জানানো হয়েছে।


টাচ করুন, দেখুন আপনার প্রিয় অভিনেত্রীদের অসংখ্য ফটো