লকডাউনে অবসাদগ্রস্ততা দূর করার উপায় জানালেন মনোবিদ বিদ্যুৎ কুমার ব্যানার্জি

পিন্টু মাইতি ও সুবল সাহা: এই মুহূর্তে অনলাইনই ভরসা। লকডাউন সিদ্ধান্তের ঘোষণা কমিউনিটি কানেকশনকে নিয়ন্ত্রণ করলেও মনের ক্ষুধা নিবৃত্ত করতে পারছে না। এই অবস্থাতে সৃষ্টিশীল মানুষ কর্মমুখর জগতে একা থাকবে কী করে? কিন্তু কিছু করার নেই, কারণ শিয়রে ভাইরাস। উপরন্তু সরকারি নির্দেশ পালনের ফরমান। দুইয়ের চাপে পড়ে মানুষ অনেকাংশে মানসিকভাবে আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।
বিশেষ করে শিশু ও বয়স্ক মানুষেরা বন্দিদশা কাটানোর ফলে তাদের মধ্যে দেখা দিয়েছে প্রবল উদ্বেগ। মুখোমুখি ব্যাপারটা দূরে চলে যাওয়াতে এখন যোগাযোগের একটাই মাধ্যম অনলাইন- সেটা সোশ্যাল মিডিয়া,ইন্টারনেট সার্ফিং কিংবা অন্য কোনও মিডিয়া হোক। কিন্তু কতক্ষণই বা এই পদ্ধতি চলবে? তারই কিছু প্রশ্নের সহজ উত্তর ও সমাধানের পথ বাতলেছেন বিশিষ্ট মনোরোগ বিশেষজ্ঞ বিদ্যুৎ কুমার ব্যানার্জি।
উত্তর দমদমের প্রতিষ্ঠিত ‘মানবিক’ নামক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক বিদ্যুতবাবু চলতি লকডাউনে কতগুলিক মন সামাজিক সমস্যা খোঁজার চেষ্টা করেছেন। তিনি জানান, বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাস আক্রমণের ব্যাপকতা মানুষের মধ্যে অনিশ্চয়তাও অসহায়তার সৃষ্টি করেছে। সাথে নিজেদের গৃহবন্দী রাখার নিদানের ফলে তৈরি হয়েছে অস্থিরতা, উদ্বেগ, অনিদ্রা, একাকীত্ব ও অবসাদগ্রস্ততা। তাঁর মতে, লকডাউন চলাকালীন এই একাকীত্ব অনুভবকে সাময়িক সমস্যা হিসেবে ধরতে হবে। সমাধান হিসেবে তিনি মনে করেন, শিশুদেরকে বয়স অনুযায়ী বাড়ির কাজের কিছু লঘু দায়িত্ব দেওয়া যেতে পারে; যেহেতু স্কুল বা পড়াশোনার চাপ থাকাতে শিশুরা তাদের পছন্দের সব কাজ করতে পারে না, তাই এসময়টা তাদের একঘেয়েমি কাটানোর পক্ষে সহায়ক হবে। এছাড়া ছবি আঁকা এবং মজাদার হাতের কাজের মাধ্যমেও তাদের মানসিক দোলাচলকে স্বাভাবিক করা যায়।

একটি বিশেষ ক্ষেত্রে তিনি জোর দিয়ে বলেছেন যে, এই সময়টাকে সদর্থকভাবে ব্যবহার করতে পারলে অর্থাৎ বই পড়া, গান শোনা,পুরনো বন্ধুত্বকে ঝালিয়ে নিয়ে এবং ফেলে রাখা পুরনো কাজ করে এই সাময়িক একাকিত্ব দশা থেকে কাটিয়ে ওঠা যায়। তবে দেখতে হবে কোনও ব্যক্তি আবার এই একাকীত্ব উপভোগ করে কিনা! এক্ষেত্রে একাকিত্বের সমস্যায় থাকা ব্যক্তির শৈশব যৌবন মধ্যবয়স এবং বার্ধক্য নিয়ে পুরো জীবনচক্রের আলোচনা করা জরুরি। সেই সমস্ত বিষয়ে খোলামেলা আলোচনার জন্য ‘মানবিক’ প্রস্তুত আছে বলে বিদ্যুৎ কুমার ব্যানার্জি জানান। তিনি এও জানান, এই পরিস্থিতিতে তারা অনলাইনের মাধ্যমে পারস্পরিক মত বিনিময়ের পরিকল্পনা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *